ছাত্র অবস্থায় আমরা সকলেই কম বেশি নিজেদের খরচ নিয়ে দ্বিধাদন্দে ভুগি। আমাদের দেশের ৭০% মানুষই মধ্যবিত্ত পরিবার থেকে উঠে আসে। পড়াশুনার, খাওয়া দাওয়া, বাসা ভাড়া ইত্যাদি প্রয়োজনীয় দ্রব্যের চাহিদা মিটাতেই আমদের পরিবারের হিমশীম খেতে হয়। তাই যারা আমরা পড়ালেখা করি বাড়তী কিছু কখনোই পাই না। অনেক স্বপ্ন আমাদের স্বপ্নই থেকে যায়। যেই বয়সে আপনার বন্ধু বাইকে জায়গায় জায়গায় ঘুরে বেড়ায়, সেই বয়সে আমি আপনি টিউশনি করাতে ১০ টাকা রিকশা ভাড়া বাচানোর চিন্তা করি। তার মানে এই না আমরা আমাদের জীবনকে এর জন্য ছোট করবো। ভাগ্যকে দোষ দিবো। আমাদেরকে আমাদের ভাগ্য নিজেদেরকেই পরিবর্তন করতে হবে। ছাত্রঅবস্থায় আমাদের উচিত পড়াশুনার পাশাপাশি এমন কিছু করা যাতে নিজের স্কিল ও বৃদ্ধি পায়,  সেই সাথে আমরা কিছু আয় তখন থেকে করতে পারি৷ এতে নিজেদের চাহিদা মিটিয়ে মন যেমন ভালো থাকবে। ঠিক তেমনি পরিবারের সাপোর্ট হয়ে থাকতে পারবো।চলুন জেনে আসি ছাত্র অবস্থায় ইনকাম করার কিছু উপায়।

★টিউশন
ছাত্র অবস্থায় ইনকামের একটি গুরুত্বপূর্ণ পদ্ধতি হচ্ছে টিউশন করানো। এতে করে করে অন্যদের পড়ানোর মাধ্যমে নিজেদের স্কীল বৃদ্ধি পায়। যা চাকরী ক্ষেত্রেও অনেক সাহায্য করে। অনেকেই টিউশন করে তাদের আর্থীক সচলতা এনেছে। এখন অনেকেই ভাবতে পারেন কোথায় পেতে পারি আমরা টিউশন কিভাবে পেতে পারি? আপনি আপনার পাড়া প্রতিবেশীকে বলে রাখতে পারেন আপনি টিউশন করাতে আগ্রহী। যদি তাদের ছেলে মেয়ে থাকে তাহলে চান্স থাকে আপনাকে তাদেরকে পড়ানোর দায়িত্ব দিতে পারে।এভাবেও যদি না পান টিউশন। আপনি পড়াতে চাই লিখে আপনার পাড়া মোহল্লায় পোস্টার লাগিয়ে দিতে পারেন। এতে করে আপনি অনেক টিউশন পেতে পারেন। তবে মনে রাখতে হবে। পড়াতে সবাই পারে না। এর জন্য ভালো স্কিল এর প্রয়োজন। তাই যদি টিউশন আপনি না করাতে পারেন আরোও অনেক অপশন আছে আপনার জন্য।

★ ফ্রিল্যান্সিং 
ছাত্রঅবস্থা থেকে ফ্রিল্যান্সিং হতে পারে আপনার জীবন ঘুরিয়ে দেওয়ার মতো সিদ্ধান্ত।  বর্তমানে অনেকে ফ্রিল্যান্সিং করেই এতো রোজগার করছে যা অনেক পড়াশোনা শেষ করে চাকরি করেও পাচ্ছে না। চাইলে আপনিও পারেন নিজেকে অনলাইন কাজে দক্ষ করে ফ্রিল্যান্সার হিসেবে কাজ করতে৷ এতে আপনার বর্তমান এবং ভবিষ্যত দুটোই সুরক্ষিত থাকে। একটা ভালো আয়ের উৎস হতে পারে ফ্রিল্যান্সিং।  
চলুন জেনে আসি ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে। ফ্রিল্যান্সিং এর বিভিন্ন প্লাটফর্ম রয়েছে। বিভিন্ন মার্কেট প্লেস রয়েছে৷ যেমনঃ Fiverr, Freelancer.com,Freepik, Pngtree ইত্যাদি। এসবে আপনারা নানান ধরণের কাজ করতে পারেন।
যেমনঃGraphic Design, Web Design, Web Development, Animation, Digital Marketing, Affiliate Marketing, Data Entry ইত্যাদি।

চাইলে এসব কাজ শিখে ছাত্রঅবস্থা থেকেই ক্যারিয়ার গড়ে তোলা যায়।  চলুন এসব কাজের সম্পর্কে কিছুটা তথ্য জেনে আসি।

1)Graphic Design
বর্তমানে Graphic Design এর অনেক চাহিদা রয়েছে। বিভিন্ন কোম্পানির প্রচারের জন্য প্রতিদিনই প্র‍য়জোন পরে বিভিন্ন রকম ডিজাইনের টেমপ্লেটের। যার জন্য প্রয়োজন পড়ে Graphic Designer  এর। Logo, Business Card, Flyer, Resume ইত্যাদি কাজে প্রতিদিনই ব্যবহার করা হয় Graphic Design. বর্তমানে Graphic Design  করতে সবচেয়ে বেশি ব্যবহার করা হয় Photoshop এবং Illustrator। তাই চাইলে এইদুটি Software এর কাজ শিখে নিজেকে দক্ষ Graphic Desiner হিসেবে গড়ে তুলতে পারেন।
Previous Post Next Post